বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
প্রবীণ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ শরীফের মৃত্যুতে রাজশাহী জাসদের শোক সারিয়াকান্দিতে পুলিশের অভিযানে মাদক ব্যবসায়ীসহ গ্রেফতার-২ সারিয়াকান্দি উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত রামেবির সিন্ডিকেট সদস্য হলেন এমপি আব্দুল ওয়াদুদ দারা ও ওমর ফারুক সাবু স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত ডাক বাংলা প্রকাশনী’র ৩য় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বিদেশে নেয়ার নাম করে অর্থ আত্মসাৎ,থানায় অভিযোগ বিরামপুরের ৪নং দিওড় ইউনিয়নে ভিডব্লিউবির চাল বিতরণ বিএমএসএফ’র সাংগঠনিক কর্মপরিকল্পনা ঘোষণা সিরাজগঞ্জে বিএসটিআইয়ের অভিযানে মান সনদ না থাকায় ইটভাটা ও রেস্টুরেন্টকে জরিমানা
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

শিবগঞ্জ ইউএনওর দেয়া শীতবস্ত্র হাতে পেয়ে কাঁদলেন শতবর্ষী সফুরা

বগুড়ার শিবগঞ্জের রহবল হিন্দু পাড়ার বাসিন্দা সফুরা বেগম।স্থানীয়দের ভাষ্যমতে তার বয়স ১২০ বছর।সহায় সম্বল বলতে কিছু নাই সফুরার।বিধবা মেয়ে সাহেরা বেগম (৬৫) এর বাসায় আশ্রয় নিয়ে অসুস্থ শরীরে দিনপার করছেন।চলমান শৈত্য প্রবাহে শীতে জবুথুবু তাঁর জীবন।

রবিবার শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার রহবল হিন্দু পাড়া গ্রামের অসহায় শীতার্তদের কম্বল উপহার দেন।সেই উপহারের কম্বলের একটি হাতে পান শতবর্ষী শীতার্ত সফুরা বেগম।

কম্বল হাতে পেয়েই কান্না করেন তিনি।বলেন, “হামার দিকে কেউ দেখেনি।শীতে কত কস্ট পাচ্ছি।আল্লাহ যেনো ওর (ইউএনও) ভালো করে। হামার মায়ের উপকার করছে ও।”

গত শনিবার রহবল হিন্দু পাড়া গ্রামের সত্তর বছর বয়সি বৃদ্ধা চম্পারানী আগুন পোহাতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান।সংবাদ পেয়ে ঐ এলাকার অসহায় শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণের উদ্যোগ নেন শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার।রবিবার তাঁর উপহারের শীতবস্ত্র মৃত চম্পারানীর পুরো পরিবার ও আশেপাশের অসহায় মানুষদের মাঝে বিতরণ করা হয়।

ইউএনওর পক্ষ থেকে শীত বস্ত্র উপহার পেয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন চম্পারানীর পরিবার ও গ্রামবাসী।

মারা যাওয়া চম্পা রানীর ছেলে শ্রী পিজুস জানান, আমার মা শীত নিবারন করতে আগুন পোহাতে গিয়ে মারা গেছে।ইউএনও মহোদয় সংবাদ পেয়ে আমাদের পুরো পরিবারের জন্য শীতবস্ত্র পাঠিয়েছেন।গ্রামের বিধবা ও বয়স্কদের মাঝেও বিতরণ করেছেন। আমরা তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ।

উপজেলার শীতার্তদের পাশে থাকার কথা জানিয়ে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার বলেন, উপজেলার কোনো মানুষ যাতে শীতে কষ্ট না পায় সে জন্য প্রকৃত শীতার্ত মানুষদের খুঁজে কম্বল বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছি।শীতার্তদের পাশে দাঁড়াতে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশনায় কাজ করে যাচ্ছি।

উত্তরের জনপদে গত কয়েকদিন যাবৎ তীব্র শৈত্য প্রবাহ চলছে।বইছে হিমেল হাওয়া।রাত হলেই রাস্তাঘাট ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে।শীতে সবচেয়ে বেশি কস্ট পাচ্ছে বৃদ্ধরা।এই শীতে উপজেলা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা শীতার্তদের পাশে দাঁড়াবেন এমনটাই প্রত্যাশা সচেতন মহলের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ