বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন বিজনেস নির্দেশনা কলামঃ Business Strategy পরিবর্তন করুন রক্ত দিয়ে কিনেছি নাটোর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের মৃত্যুতে প্রদ্যুৎ কুমারের শোক জকিগঞ্জে পরিত্যক্ত দোকান থেকে খাদ্য অধিদপ্তরের চাল উদ্ধার ‘মুজিবনগর দিবস’ বাঙালির পরাধীনতার শৃঙ্খলমুক্তির ইতিহাসে অবিস্মরণীয় দিন : প্রধানমন্ত্রী রাসিকের কর্মকর্তা/কর্মচারীগণের ক্ষেত্রে সর্বজনীন পেনশন চালুকরণের নিমিত্তে মতবিনিময় সভা নড়াইল ডিবি পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ একজন গ্রেফতার গাইবান্ধায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের স্নান উৎসব উপজেলা নির্বাচন ঘিরে ব্যাপক জনসমর্থন নিয়ে এগিয়ে নুরুল হুদা
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

কানাডা ভিজিট ভিসা প্রসংঙ্গ : অনুসন্ধানী প্রতিবেদন ও কিছু জিজ্ঞাসা 

বৈধ কাগজপত্র ও ইনভাইটেশন দিয়ে ভিসা পাওয়ার পর শত শত লোক কানাডায় আসছে গত কয়েকমাস যাবত।তারই ধারাবাহিকতায় অতীতের ন্যায় বর্তমান সময়েএ সিলেটের মানুষ প্রবাসে আসার প্রবনতা বেশী লক্ষ করা যাচ্ছে এবং এ ক্ষেত্রে সফলও হচ্ছে।

কিন্তু অতিবও দুঃখের বিষয় কিছু সিলেট বিদ্ধেশি বিমান কর্মকতার রোষানলে পড়ে সিলেটের অনেক লোকের বৈধ ভিসা থাকা সত্তেও অসাধু বিমান কর্মকতার অপ্রফেশনাল আচরনে তাদেরকে ফেরত যেতে হচ্ছে বিমানবন্দর থেকে।কিছু কিছু ক্ষেত্রে এসকল যাত্রী আবার কন্ট্রাক করে ফ্লাই করছে

এসব বিষয় আজ নতুন কোন ঘটানা নয়।কিছুদিন পুর্বে যখন ডুবাই ভিজিটে যাওয়ার সুযোগ ছিলো তখনও এসকল অসাধু কর্মকর্তা বিভিন্ন অযুহাতে যাত্রীদের থেকে বিশাল অংকের টাকা নিয়ে ফ্লাইট দিতো।এখন আবার কানাডার বেলায় এ প্রথা চালু করার পায়তারা করছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স সিলেটে কর্মরত জনৈক কর্মকর্তা শাকিল আহমদ (01713037532) ঐ সময় বার বার হোয়াটসঅ্যাপে স্পন্সরের সাথে যোগাযোগ করেন এবং দীর্ঘক্ষণ কথা বলেন।একপর্যায়ে তিনি সন্তুষ্ট হন যে সব প্যাসেঞ্জারের সবকিছু ঠিক আছে।তখন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সিলেট বিমানবন্দরে কর্মরত কর্মকর্তারা সন্তুষ্ট হয়ে সকল প্যাসেঞ্জারকে বোর্ডিংপাস প্রদান করেন এবং তখন ইমিগ্রেশন শেষ করে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়।

কিন্তু ঢাকাতে পৌঁছানোর কিছুক্ষণ পর ঢাকায় কর্মরত জনৈক কর্মকর্তা মিজানুর রহমান অদৃশ্য কোন এক কারণে হটাৎ করে সিলেট থেকে ফ্লাইটে আসা কানাডিয়ান যাত্রীদের তলব করেন এবং তাদের সকলের কাছ থেকে বোর্ডিংপাস নিয়ে যান।তখন তিনি বারবার তাদের নাম ধরে ডাকেন এবং তাদের পাসপোর্ট নাম্বার বলতে থাকেন।তখন উনার মোবাইলে একটি হোয়াটসঅ্যাপে ম্যাসেজ ছিল কিন্তু সেই হোয়াটসঅ্যাপ ম্যাসেজ কোথাও থেকে আসল, যেহেতু সিলেট বিমানবন্দরের কর্মকর্তারা তাদের সবকিছু যাচাই-বাছাই করে সুদূর কানাডাতে যোগাযোগ করে তাদেরকে ছেড়ে দিল কিন্তু তাহলে ঢাকা কেন? কোন তথ্যের ভিত্তিতে তাদেরকে আটকালো এই অদৃশ্য কারণটা খুঁজে বের করা অত্যন্ত জরুরী।

এটা বাংলাদেশী হিসাবে আমাদের অনেক পীড়া দেয়।একজন বাংলাদেশী প্রবাসী হিসাবে এ সকল বিষয়ের সুরাহা করার জন্য উর্ধতন মহলের সুদৃষ্টি কামনা করছি।পাশাপাশি যারা সোস্যাল মিডিয়ায় প্রকৃত ঘটনা না জেনে কন্টেন্ট তৈরী করে ভিউ বাড়ানোর জন্য অসত্য তথ্য দিচ্ছেন যা সাধারন মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।আমি সংশ্লিষ্টদের অনুরুধ করবো প্রকৃত সত্য তথ্য তুলে ধরুন এবং সাধারন মানুষ যাতে হয়রানীর স্বীকার না হয় এ ধরনের তথ্য সরবরাহ করুন।

উল্লেখ্য যাদেরকে এয়ারপোর্ট থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে তাদের সকলের বৈধ ভিসা ছিলো।হোটেল বুকিং, আর বি এন বি বুকিং সহ সব কিছু ঠিক ছিলো।তাদের মধ্যে ১৮ জন ফ্যামেলী মেম্বার যারা বিয়ের অনুষ্টানে আর বাকীরা তারা ভিজিট করতে আসছে তাদের নিকটতম জনের ইনভাইটেশনে সেখানে বাংলাদেশ বিমানের কর্মকতা কোন অজুহাতে তাদেরকে আনতে অস্বীকৃতি জানালেন।এতে করে বিমানের যে লোকসান হলো এটা কে পুষাবে ? দয়া করে এ বিষয়গুলি খতিয়ে দেখার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।

কানাডা প্রবাসী কামরুল হাসান শাহান এর ওয়াল থেকে!


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × four =


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ

x