বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাচন : জনসমর্থনে এগিয়ে শুভ

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পঞ্চগড় সদর উপজেলা থেকে ব্যাপক জনসমর্থন আদায় করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা।এর মধ্যে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সাবেক মানব সম্পদ উন্নয়ন সম্পাদক ও ৩নং পঞ্চগড় সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য মোঃ শাহনেওয়াজ প্রধান শুভ ব্যাপক জনসমর্থন আদায় করতে সক্ষম হয়েছেন।

শিক্ষিত ও সুদর্শন হ্যান্ডসাম চেহারার অধিকারী এই আওয়ামী লীগ নেতা ছোট থেকেই স্বপ্ন দেখতেন অসহায়-দরিদ্র জনগোষ্ঠির পাশে থেকে সেবা করার।জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষন শুনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণীত হয়ে দরিদ্র জনগোষ্ঠির সেবা করার সেই স্বপ্ন বুকে ধারন করে ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগের পতাকাতলে এসে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন।

সুন্দর হাসিমাখা মুখখানি নাম তাঁর শাহনেওয়াজ প্রধান শুভ।তিনি পঞ্চগড় ১ আসনের দুইবারের সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ মাজাহারুল হক প্রধানের ছেলে।বাবার হাত ধরে রাজনীতি শিখা ও সততা, স্বচ্ছতা, শান্তি স্থাপনে বিশেষ ভূমিকা অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হয়ে ওঠা এই মানুষটি এবার পঞ্চগড় সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করবেন।

প্রচন্ড ঝড়-বৃষ্টি বা সর্বোচ্চ তাপমাত্রাকে অপেক্ষা করে নিজ সখের বাড়ি থেকে যখন বেরুতেই মন চায় না, সেই গরমের মাঝে রুমে যখন একটু আরাম হয়।তখও সব আরাম ভুলে পরিবারের মানুষদের আহার নিয়ে ভাবতে হয় সাধারণ দিনমুজুর, শ্রমিক মানুষদের।বস্তুত তাদের একটি আরামের দুপুর অনেকগুলো মানুষের অনাহারের কারন হয়ে দাড়ায়। তাই এরকম চিন্তা তাদের কাছে দুরাশার।আমাদের একজন নেতা আছে যাকে নেতা না বলে জনগণের জন্য একজন আদর্শ মানুষ বলাটাই ঠিক হবে।যে দিনরাত এক করে মাঠে ময়দানে ছুটে বেড়ান এবং সাধারণ মানুষ, শ্রমিক দিনমজুর ভাইদের কষ্ট গুলো চোখে পড়ে।যে কষ্টগুলো আমাদের মতো আরামপ্রীয় মানুষেরা দেখতে পায়না।সাধারণ মানুষ না হলে কি মানুষদের কষ্ট বোঝা যায়।ভাইয়ের জন্য যে ভাইয়েরই মন সবচেয়ে বেশি মনে পোড়ে।তেমনি গাড়ি হাতে, মোটর শ্রমীক, কাচি হাতে ধান শ্রমিক, প্যাডেল ঘুরানো ভ্যান শ্রমিক, ঝুড়ি মাথায় নির্মাণ শ্রমিক, ঝাড়ু হাতে পরিচ্ছন্নতা কর্মি, কিংবা বৈঠা বাউয়া নৌ শ্রমিক, সবাই যে তাকে চেনে এবং ভালোবাসে বিশেষ ভাবে তাদের মাঝে কাজ করার কারনে।এর চেয়ে কি বড় মনের মানুষ কি আর হতে পারে।যে নিজেকে জনগণের জন্য একজন আদর্শ মানুষ মনে করেন বলেই সাধারণ মানুষদের জন্য তার এতো ব্যথা।কোথাও চলার পথে তাদের কষ্ট পেতে দেখলে, যেকোন ভাবে তাদের কষ্ট লাঘবের চেষ্টা করেন।রোদ বৃষ্টি ঝড়ের মধ্যে অসহায় মানুষের পাশে গিয়ে সেবা করেন এবং সাধারণ মানুষ এবারে এমন একজন নেতা খোঁজে যে হবে তাদেরই একজন।তাদের সুখ দুঃখ উপলদ্ধি করবে সে।

একজন নেতার থাকতে হবে বলিষ্ঠ নেতৃত্ব গুণ, অসীম সাহস ও বীরত্ব।তাকে হতে হবে জনগণের আস্থাভাজন, অটল, অবিচল।কোন প্রকার লোভ, অত্যাচার, মোহ তাকে সংকল্প থেকে বিচ্যুৎ করতে পারবে না।জাতির জীবনে এই প্রাণ সঞ্চার করেন।এ ধরনের নেতাদের কর্ম ও অনুপ্রেরণায় সাধারণ মানুষ আপন অন্তরে অনুভব করেন অমিত শক্তি ও বল।তারা যে কোন ধরনের অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে পিছপা হন না।এদের কথায় জনগণ জীবন পর্যন্ত বিলিয়ে দিতে, কুণ্ঠিত হন না।

তাই পঞ্চগড়বাসীর হৃদয়ে ভালোবাসার স্থান করে নিয়েছেন সৎ সাহসী এই নেতা।আর এটাই একজন রাজনৈতিক নেতার জন্য অনেক বড় পাওয়া। 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

7 − four =


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ

x