শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৬:১৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
এক যুগ পরে নিজের গানে মডেল হলেন ফারদিন রাজশাহীতে বিএনপির গায়েবানা জানাজা অনুষ্ঠিত রাবি ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের কক্ষে থেকে মাদক-অস্ত্র উদ্ধার ফরিদপুরের ভাঙ্গায় মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে কটুক্তির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ বাঘায় (অনুর্ধ-১৭) প্রথম খেলায় ১-০ গোলে মনিগ্রাম ইউপি,দ্বিতীয় খেলায়-৩-১ গোলে পাকুড়িয়া জয়ী পাইকগাছায় প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও ঝাড়ু মিছিল একটি মানবিক আবেদন গলাচিপায় শিশু শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনায় মুগ্ধ হলেন পরিকল্পনা সচিব রাজশাহীতে ফজরের নামাজ পড়ে হাটাহাটির সময় যুবককে হত্যা বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন ফরিদপুর জেলা কমিটির উপদেষ্টা এ কে আজাদ এমপি
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

রাজশাহীতে টিবিপুকুর গণহত্যা দিবস পালিত

রাজশাহীতে টিবিপুকুর গণহত্যা দিবস পালন করা হয়েছে।

গতকাল রোববার (১৪ এপ্রিল) রাজশাহী প্রেসক্লাব ও জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদের যৌথ উদ্যোগে দিবসটি পালন করা হয়।

এদিন বিকেলে টিবিপুকুর গণকবরে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং গণকবর প্রাঙ্গণে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।এতে সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী প্রেসক্লাব ও জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ সভাপতি সাইদুর রহমান।

সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. আসলাম-উদ-দৌলার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন পরিবেশবিদ কাজী রকিব উদ্দিন।

এ সময় মুক্তিযুদ্ধের তথ্য সংগ্রাহক ওয়ালিউর রহমান বাবু, জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদের সহ: সভাপতি সালাউদ্দিন মিন্টু সহ অন্যান্য অতিথিরা বক্তব্য রাখেন।এ কর্মসূচিতে সংগঠন দুটির সদস্যরা অংশ নেন।সমাবেশে বক্তারা বলেন, ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সদস্যরা রাজশাহী নগরীর টিবিপুকুর হাসপাতালে ঢুকে পড়ে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালায়।পাক বাহিনী নগরীর বিভিন্ন এলাকায় মুক্তিকামী জনগণের ওপর এলোপাথাড়ি গুলি বর্ষণ করতে থাকে।ওইদিন টিবি হাসপাতালে গিয়ে কর্মচারীদের লক্ষ্য করে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে পাক বাহিনীর সদস্যরা।গুলিতে হাসপাতালটির কর্মচারী আবদুল বারি হাওলাদার, আবদুল কাইউম ও মো. সেলিম নিহত হন।ন্যাক্কারজনক এ হত্যাকাণ্ডের পর দুদিন ধরে মরদেহ হাসপাতালের মেঝেতেই পড়ে থাকে।দুদিন পর শহীদ আবদুল বারি হাওলাদারের সদস্যরা শিতলাই এলাকায় অবস্থানের পর হাসপাতালে এসে মেঝেতেই তিনটি মরদেহ রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে।

তারা বলেন, এরপর স্বজনরা হাসপাতালের দরজার একটি পর্দার কাপড়ে তিনটি মরদেহ জড়িয়ে টিবি পুকুরের পাশে গণকবর দেন।১৪ এপ্রিলের গুলিবর্ষণে বহু হতাহত হয়েছিল।পরবর্তীতে তাদের খোঁজ পাওয়া যায় নি।এ ঘটনার স্মরণে শহীদ আবদুল বারি হাওলাদারের সন্তান ফটো সাংবাদিক বুলবুল আহমেদ ২০০৬ সালে তার পিতার গণকবরটিতে স্মৃতিফলক বসানোর ব্যবস্থা করেন।

উক্ত সমাবেশ থেকে বক্তারা দুর্নীতিবাজ-লুটেরাদের বিরুদ্ধে জনগণকে সোচ্চার হওয়ার আহবান জানান।উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার আহবানও জানান তারা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four + eighteen =


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ

x
Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com