বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

রেলওয়ের চলমান অবস্থা শীর্ষক সংলাপ ও সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটির উদ্যোগে ২০ মার্চ বুধবার সকাল ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের ২য় তলায় তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে (সাবেক ভিআইপি লাউঞ্জ) রেলওয়ের ট্রেড ইউনিয়ন সমূহের নেতৃবৃন্দ ও রেলপোষ্যদের নিয়ে “রেলওয়ে কর্মচারী-পোষ্যর অধিকার ও ত্রুটিপূর্ণ, সাংঘর্ষিক নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ এবং রেলওয়ের চলমান অবস্থা শীর্ষক সংলাপ ও সাংবাদিক সম্মেলন” অনুষ্ঠিত হয়।

সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটির সভাপতি মোঃ মনিরুজ্জামান মনির বলেন, রেলওয়ে কর্মচারী ও পোষ্যরা আজ তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে “রেলওয়ে ক্যাডার বহির্ভুত কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা-২০২০” এর মাধ্যমে।বাংলাদেশ সরকারী কর্ম কমিশনের সহিত পরামর্শ ক্রমে গত ২২ শে নভেম্বর ২০২০ সালে বাংলাদেশ রেলওয়ে ক্যাডার বহির্ভূত কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ অনুমোদন করা হয়।অনুমোদিত নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ মূলত রেলওয়ে পোষ্য এবং শ্রমিক-কর্মচারীদের অধিকার বঞ্চিত করার এক ঐতিহাসিক দলিল। ষড়যন্ত্রমূলক এই নিয়োগ বিধিমালা রেলওয়ে পোষ্য এবং শ্রমিক-কর্মচারীরা নীতিগত ভাবে মেনে না নিয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ের সকল ট্রেড ইউনিয়ন ও বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটি আন্দোলন-সংগ্রাম গড়ে তোলে এবং রেলওয়ের ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারী ও পোষ্যদের অধিকার বঞ্চিত করার ষড়যন্ত্রকারী কালো বিড়াল চক্রের পরামর্শে অনুমোদিত ত্রুটিপূর্ণ সাংঘর্ষিক নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ সংশোধন এর দাবিতে দীর্ঘদিন বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটি আন্দোলন সংগ্রাম করে আসছে।গত ৯ নভেম্বর ২০২১ তারিখে নিয়োগ বিধি ২০২০ সংশোধন সহ ৮ দফা দাবিতে তৎকালীন রেলপথ মন্ত্রীকে স্বারকলিপি পেশ করা হয়।গত ২১ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটি কর্তৃক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদানের প্রেক্ষিতে ২৭ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালককে আহ্বায়ক করে ১৮ সদস্য বিশিষ্ট নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ হালনাগাদ/সংশোধন করণের জন্য কমিটি গঠিত হয়।কিন্তু গত ২৮ মাসেও কমিটি কর্তৃক নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ সংশোধন না করেই গায়েবী বিধিমালায় সম্পূর্ণ অবৈধভাবে জনবল নিয়োগ কার্যক্রমের মাধ্যমে রেলওয়ে পোষ্যদের অধিকার বঞ্চিত করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ সংশোধন প্রক্রিয়া ঝুলিয়ে রেখে একের পর এক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি করে রেলওয়েতে এখন পর্যন্ত প্রায় ৫ হাজার ৩৪২ জন জনবল নিয়োগ করা হয়েছে।বাংলাদেশ রেলওয়ে ত্রুটিপূর্ণ নিয়োগ বিধিমালা-২০২০ সংশোধন না করে অবৈধ জনবল নিয়োগ প্রক্রিয়াকে বৈধতা দিতে প্রতিটি বিজ্ঞপ্তিতে “নিয়োগের ক্ষেত্রে সরকারের বিদ্যমান বিধি-বিধান ও কোটা পদ্ধতি এবং পরবর্তীতে এ সংক্রান্ত বিধি—বিধানে কোন সংশোধন হলে তা অনুসরণযোগ্য হবে” বলে একটি শর্ত যুক্ত করেছে।এই শর্তটি আসলে একটি শুভঙ্করের ফাঁকি।কর্তৃপক্ষের শর্ত অনুযায়ী রেলওয়ে কর্মচারীদের পোষ্যদের সংজ্ঞা সংশোধন করে চাকরিতে আবেদনের ক্ষেত্রে ২০ বছরের স্থানে যদি পূর্বের ন্যায় ১৫ বছর অথবা ১০ বছর করা হয় এবং শিক্ষাগত যোগ্য শিথিল করা হয় তাহলে কি বর্তমানে যারা চাকরিতে আবেদনের সুযোগ পাচ্ছেন না বাংলাদেশ রেলওয়ে কি তখন তাদেরকে আবেদনের সুযোগ করে দিবে? বাস্তবতা হলো সেটি সম্ভব নয়।২৮ মাসেও নিয়োগ বিধিমালা সংশোধন না করে যে জনবল নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে এটি মূলত অসাধু কর্মকর্তাদের নিয়োগ বাণিজ্যের অংশ।

মনিরুজ্জামান মনির আরো বলেন, রেলপথ মন্ত্রণালয়ের নতুন মন্ত্রী দায়িত্বভার গ্রহণের পর রেলওয়ে কর্মচারী ও পোষ্যরা তাদের অধিকার আদায়ে আশান্বিত হলেও বর্তমান রেলপথ মন্ত্রী কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই গত ১ ফেব্রুয়ারি ২৪ তারিখে অপেক্ষমান তালিকার নামে ৪০৫ জন ওয়েম্যান পদে চূড়ান্ত নিয়োগ প্রদান করেন অথচ অপেক্ষমান তালিকা বলতে বাংলাদেশ রেলওয়ের ইতিহাসে এবং ত্রুটিপূর্ণ সাংঘর্ষিক নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ তেও কোন কিছুই নাই।এটা একটি গায়েবী নিয়োগ বিধিতে দেওয়া হয়েছে বলে বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটি মনে করছে।

শুধু তাই নয় নতুন রেলপথ মন্ত্রীকে নিয়োগ বিধি সংশোধনের জন্য গঠিত কমিটির বিষয়ে অন্ধকারে রেখে গত ৪ মার্চ ২০২৪ তারিখে ফিল্ড কানুনগো, গার্ড গ্রেড-২, আমিন এবং পয়েন্টসম্যান পদে নতুন করে জনবল নিয়োগ এর মাধ্যমে বর্তমান রেলপথ মন্ত্রীকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছ রেলওয়ের দুর্নীতিবাজ কালো বিড়াল চত্রুটি।এমতাবস্থায় বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটি পূর্বের মন্ত্রীর সময়ের ন্যায় পোষ্যদের অধিকার বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কা করে গত ৭ মার্চ ২০২৪ বর্তমান রেলপথ মন্ত্রী মহোদয়কে ত্রুটিপূর্ণ সাংঘর্ষিক ও স্বৈরাচারীতা রেলওয়ে নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ সংশোধন কমিটি কর্তৃক দীর্ঘ ২৭ মাসেও সংশোধন না করে রেলওয়ে পোষ্যদের অধিকার বঞ্চিতের জনবল নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন করেছি এবং অবিলম্বে এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বাতিল সহ নিয়োগ বিধিমালা- ২০২০ সংশোধন না হওয়া পর্যন্ত সকল প্রকার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ বন্ধ ও দুর্নীতি পরায়ন সুবিধাভোগী গোষ্ঠীটিকে চিহ্নিত করে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছি।আমাদের দাবি মেনে না নেওয়ার প্রেক্ষিতে আজ ২০ মার্চ ২০২৪ বাংলাদেশ রেলওয়ের সকল ট্রেড ইউনিয়নকে সাথে নিয়ে সংলাপ ও সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটি একই দাবিতে ২৮ এপ্রিল ২০২৪ তারিখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট স্মারকলিপি পেশ করা করবে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটির সভাপতি আরো বলেন, ত্রুটিপূর্ণ সাংঘর্ষিক ও স্বৈরাচারীতা নিয়োগ বিধিমালা সংশোধন করতে ২৭ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে ১৮ সদস্য বিশিষ্ট নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ হালনাগাদ/সংশোধন করণের জন্য কমিটি গঠিত হওয়ার পর কমিটির আহবায়ক রেলওয়ের মহাপরিচালক মহোদয় সহ ১৮ সদস্য বিশিষ্ট সকল সদস্যদের নিকট গত ২৮ ফেব্রুয়ারি/২০২২ তারিখে রেলওয়ে কর্মচারী বান্ধব নিয়োগ বিধিমালা প্রণয়নে রেলওয়ে ক্যাডার বহির্ভূত কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ এর বিভিন্ন অংশ সংশোধনের জন্য বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটি একটি লিখিত প্রস্তাবনা পেশ করেছে।দুঃখজনক হলেও সত্য ১৮ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গত ২৮ মাসেও নিয়োগ বিধিমালা সংশোধন করতে না পারলেও জনবল নিয়োগ ঠিকই করছেন।

এ সময় সংলাপে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আমজাদ হোসেন চৌধুরী, প্রচার ও প্রচারনা সম্পাদক কামাল হোসেন, বাংলাদেশ রেলওয়ে কারিগরি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ কুদরত-ই-বারী, সহ-সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান সরকার, জাতীয়তাবাদী রেলওয়ে শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক এড. এম আর মঞ্জু, অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক সম্পাদক আওলাদ হোসেন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক জহিরুল হক, রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটির ভারপ্রাপ্ত আব্দুর রাজ্জাক মল্লিক, ক্রীড়া সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নুরজাহান আক্তার প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 5 =


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ

x