সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
টাঙ্গাইলের মধুপুরে টিওটি প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত রাজশাহী রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ মিন্টু রহমান অতিরিক্ত সচিব পদে পদন্নোতি পেলেন কিশোরগঞ্জের সন্তান আব্দুর রউফ প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহের শেষ দিনে কাজিপুরে সচেতনামূলক কর্মশালা ও পুরস্কার বিতরণী সুন্দরগঞ্জে গ্রাম পুলিশদের অবহিতকরণ প্রশিক্ষণ শুরু পঞ্চগড়ে জেলা প্রশাসকের গাড়ি ভাঙচুর, যুবক আটক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী হোসেনের মৃত্যুতে রাসিক মেয়রের শোক রাসিক‘কে সুদৃঢ় আর্থিক ভিত্তির উপর দাঁড় করতে চাই : মেয়র লিটন বাগেরহাট বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়  নির্বাচিত হচ্ছেন তিন প্রার্থী  তথ্য ও প্রযুক্তির মাধ্যমে ৯টি হারানো ফোন উদ্ধার করে মালিকদের ফিরিয়ে দিল সরিষাবাড়ী থানা পুলিশ
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

সারিয়াকান্দিতে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার সকালে উপজেলার প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনটি করেন মেসার্স ফাবিহা ট্রেডার্স এর সত্ত্বাধিকারী ইফাজ উদ্দিন প্রাং।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি তার জব্দকৃত ইজারার বালু পুনরায় বিক্রি ও উত্তোলনের জন্যও প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে ইফাজ উদ্দিন বলেন, দৈনিক সমকাল পত্রিকায় এক স্থানে বালূও ইজারা ১০ পয়েন্টে ড্রেজার শিরোনামে মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রকাশিত হয় গত ১৪/০৩/২৪ ইং।এই সংবাদটি মিথ্যা ও বানোয়াট।আমি বগুড়া জেলার প্রথমশ্রেনীর একজন তালিকাভুক্ত ঠিকাদার আমার প্রতিষ্ঠানের নাম মের্সাস ফাবিহা ট্রেড্রাস।জেলা প্রশাসকের কার্যালয় হইতে ১৯/০৬/২০২৪ ইং সরকারি স্মারকে একটি বিজ্ঞপ্তির প্রেক্ষিতে জানতে পারি সারিয়াকান্দি উপজেলাধীন নাড়াপালা বালুমহল ১ বছরের জন্য ইজারা চেয়ে ০৫/০৭/২০২৩ তারিখে দরপত্র দাখিল করি।আমার দরপত্রে উল্লেখিত ইজারা মূল্য ১ কোটি ২২ লাখ ১০ হাজার টাকা যা সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে গন্য হই।পরবর্তীতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় হইতে আদেশ প্রাপ্ত হয়ে ইজারা মূল্য বাবদ ১ কোটি ২২ লাখ ১০ হাজার টাকা এছাড়াও ইজারা মূল্যে ১৫% ভ্যাট বাবদ ১৮ লাখ ৩১ হাজার ৫শত টাকা এবং আয়কর বাবদ ১০% ১২ লাখ ২১ হাজার টাকা মোট ১ কোটি ৫২ লাখ ৬২ হাজার ৫শত টাকা ২৬/০৭/২০২৩ তারিখে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জমা প্রদান করেছি।

এমতাবস্থায় জনৈক মজনু মিয়া কর্তৃক মহামান্য হাইকোর্টে ৮৭৫৪/২০২৩ নং রিট মামলা দায়ের করেন।উক্ত রিট মামলার নিষেধাজ্ঞা কারণে যথাযথ সময়ে ইজারার চুক্তি নামা সম্পাদন বুঝিয়া পাইনি।উক্ত রিট মামলার নিষেধাজ্ঞা বিরুদ্ধে নিজে বাদী হয়ে নিজ খরচাই মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট ২৪২৩/২০২৩ নং আপিল মামলা করি এবং আপিল মামলার আদেশ মোতাবেক বালু মহলটি ৩/৯/২০২৩ ইং তারিখে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের মাধ্যমে বালুমহলটি দখল প্রাপ্ত হয়।দখল প্রাপ্ত হওযার পর উপজেলা প্রশাসনের বুঝিয়ে দেয়া নির্ধারিত একটিস্থান হইতে বালু উত্তোলন করি।যেটি নদীর কিনারা হইতে প্রায় ৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।নাড়াপালা বালু মহল হইতে বাল্কহেট মাধ্যমে বালু পরিবহন করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অনুমতিক্রমে উপজেলা প্রশাসনের নির্ধারণ করে দেয়া লিজকৃত ৪টি স্থানে বালু স্তুপ করে রাখা হয়।উক্ত স্থান হইতে সংরক্ষিত বালি সবেমাত্র বালু বিক্রয় শুরু করা হয়েছিল।

এমতাবস্থায় জেলা প্রশাসক কর্তৃক বিনা নোটিশে কোনো কারণ ছাড়াই চলতি বছরের ফেব্রয়ারী মাসের ৩ তারিখ হতে বালু উত্তোলন ও বিক্রয় করা থেকে বিরত থাকার জন্য মৌখিকভাবে জানানো ও লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়।আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আমি সকল কার্যক্রম বন্ধ রাখি।তারপর মাননীয় জেলা প্রশাসকের নিকট বালু মহলের কার্যক্রম পুনরায় চালু করার জন্য আবেদন করি, কিন্তু মাননীয় জেলা প্রশাসকের কোনো উত্তর না পেয়ে মহামান্য হাই কোর্টের শরনাপন্ন হয়ে একটি রিট মামলা ১১.০৩.২০২৪ ইং তারিখে যাহার মামলা নং ২৮৭০/২০২৪।একই দিনে মামলার আদেশ প্রাপ্ত হয়ে বালু মহলের কার্যক্রম চালাতে আইনগত কোনো বাধা নেই।আদেশের উকিল নোটিশটি জেলা প্রশাসক, উপজেলা প্রশাসক, উপজেলা ভূমি অফিসে জমা দিয়ে রিসিভ কপি বুঝিয়ে নেয়।সরকারের সকল আইন মেনে ও ইজারা মূল্য ভ্যাট ট্যাক্স পরিশোধ করেও বালু মহলের সকল কার্যক্রম চালানোর পরও স্থানীয় প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে সহযোগীতা না পেয়ে পক্ষান্তরে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে হয়রানীর শিকার হচ্ছি।গত ৩/০২/২০২৪ ইং থেকে প্রায় দেড় মাস বন্ধ থাকায় প্রতিদিন ১লক্ষ চুয়াল্লিশ হাজার ২০ টাকা যা এ পর্যন্ত প্রায় ৬৪ লক্ষ ৮০হাজার ৯ শত টাকা ইতিমধ্যেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি যা ১০/০৩/২০২৪ ইং তারিখে চিঠির মাধ্যমে জেলা প্রশাসক মহোদয়কে জানিয়েছি।আমি বিপুল পরিমাণে অর্থ ক্ষতি ও এর সঙ্গে জড়িত ২০টি পরিবার পথে বসেছে।এরপরও একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় অবাস্তব মিথ্যা, বানোয়াট ভিক্তিহীন সংবাদ পরিবেশন করে।উক্ত সংবাদটি বিপক্ষে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

এ ব্যাপারে তিনি প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তার নিকট বালু মহলের বালু উত্তোলন ও বিক্রয়ের অনুমতি দিয়ে ২০টি পরিবারকে আর্থিক ক্ষতির দিক থেকে বাঁচানো আকুল আবেদন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ব্যবসায়ী মোঃ আব্দুল মোমিন, মোঃ রেজাউল করিম রনি, আব্দুর রাজ্জাক, উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকৃন্দ। 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

9 − 7 =


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ

x