সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ০৮:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রাজশাহী বরেন্দ্র কলেজের নতুন অধ্যক্ষ রণজিৎ কুমার সাহা জাতীয় ব্লাইন্ড ক্রিকেট পরিচালনা কমিটির সভাপতি হলেন সংগীতশিল্পী ফারদিন রাজশাহীতে বিশ্ব মেট্রোলজি দিবস পালন সারিয়াকান্দিতে উপজেলা পরিষদের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যানকে সংবর্ধনা বিয়েতে রাজি না হওয়ায় আত্মহত্যা, প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে মামলা সারিয়াকান্দির সেই মেধাবী ছাত্র সাকিবুল হাসানের দায়িত্ব নিলেন সাহাদারা মান্নান এমপি সারিয়াকান্দিতে জিপিএ-৫ পেয়েও অর্থের অভাবে কলেজে ভর্তি অনিশ্চিত সাকিবুল হাসানের সারিয়াকান্দিতে ইউএনও’র সাথে নবনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যানের শুভেচ্ছা বিনিময় সারিয়াকান্দিতে সরকারি খাদ্য গুদামে ইরি-বোরো ধান ও চাল সংগ্রহের শুভ উদ্বোধন সারিয়াকান্দিতে ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেটসহ গ্রেফতার-২
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

পানির দামে সবজি,১ শত টাকায় ব্যাগ ভর্তি বাজার!

জয়পুুরহাটের সীমান্ত ঘেষা দিনাজপুরের বাংলা হিলিতে পানির দামে বিক্রি হচ্ছে শীতকালীন সব ধরনের সবজি।বর্তমানে ১০০ টাকায় ব্যাগভর্তি সবজি কেনা যাচ্ছে; বিগত সময়ে ৫০০ টাকার সবজি কিনেও ব্যাগ ভরেনি।এতে খুশি সবজি কিনতে আসা সাধারণ ক্রেতারা।তবে হঠাৎ এভাবে দাম পড়ে যাওয়ায় লোকসানের আশঙ্কায় রয়েছেন স্থানীয় কৃষকরা।

সোমবার (২০ নভেম্বর) বাংলা হিলি সবজি বাজারে ঘুরে দেখা যায়, প্রতিটা সবজির দোকানে ডালিভর্তি হরেক রকমের শীতকালীন সবজি শোভা পাচ্ছে।প্রতিটা দোকানে রয়েছে ক্রেতাদের ভিড়।

এ বিষয়ে সবজি বাজারে কথা হয় ক্রেতা আক্কাস আলীর সাথে কথা বললে তিনি বলেন, বর্তমানে হিলি বাজার সবজিতে ভরপুর।দামও আলহামদুলিল্লাহ অনেকটা কম; যে কারণেই অনেক সবজি কিনলাম।এক ব্যাগ সবজি ১০০ টাকা দিয়ে ভরে গেল; বিগত সময়ে ৫০০ টাকার সবজি কিনেও ব্যাগ ভরেনি।

আরেকজন ক্রেতা শফিক বলেন, বেগুন ২০ টাকা কেজি, মুলাই ১০, সিম ৪০, বাঁধাকপি ৩০, পটল ২৫ ও কাঁচা মরিচ ৮০ টাকা কেজিতে নিয়েছি।এভাবে যদি দাম থাকে তাহলে তো আমাদের জন্য অনেকটা সুবিধা।

বাজারে সবজির দোকানদার বুলবুল মিঁয়া বলেন, বর্তমানে সবজি দাম অনেকটা কম; যে কারণেই বেচা-বিক্রি অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে।আগে যেখানে বেগুন বিক্রি হতো এক মণ; এখন পাঁচ থেকে ছয় মণ বিক্রি হচ্ছে।এভাবে প্রতিটা সবজিই মণে মণে বিক্রি হচ্ছে।

আরেক সবজি দোকানদার সোহেল বলেন, এইসব সবজি আগে আমরা বগুড়া মহাস্থানসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে আনতাম; এখনই এসব সবজি আসছে পার্শ্ববর্তী উপজেলা বিরামপুর, পাঁচবিবিসহ আশপাশে থেকে।এবার শীতকালীন আগাম সবজি অনেক আবাদ হয়েছে; দামও অনেক কম।যে কারণে আমরা প্রতিদিন বস্তায় বস্তায় সবজি আনছি।আগে যেখানে প্রতিদিন ৫০০ টাকা লাভ করা খুব কষ্ট হতো; এখন আমদানি বেড়েছে লাভ ও বেশি হচ্ছে।

হিলির বাজারে কথা হয় কৃষক আব্দুল ছালামের সঙ্গে; তিনি সময় সংবাদকে বলেন, আমরা যে সবজি আবাদ করেছি ভেবেছিলাম এবার পর্যাপ্ত লাভ হবে; কিন্তু গায়ে-গায়ের সমান।যে দামে বিক্রি করছি তাতে লাভ খুব একটা হবে না।কারণ অবরোধের কারণে বাহির থেকে সবজির পাইকাররা কম আসছেন।যে কারণে সবজিগুলো আমাদের লোকাল বাজারে বিক্রি করতে হচ্ছে।বেগুন পাইকারিভাবে ২৫ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে মুলায় ১০, সিম ৩০ টাকা- এভাবে যদি দাম কমে তাহলে কয় টাকা লাভ হবে।

এ বিষয়ে হাকিমপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোছাম্মদ আরজেনা বেগম গণমাধ্যম কর্মীদের বলেন, সরকারে নানা পদক্ষেপে ইতিমধ্যে কৃষিতে ব্যাপক সফলতা এসেছে।বিভিন্ন সময় কৃষকদের বীজ সার প্রণোদনাসহ নানাভাবে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।ইতিমধ্যে আমরা সফলতা পেয়েছি।কৃষকরা তাদের উৎপাদিত সবজি বাজারে বিক্রি করছেন।স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে এগুলো বিভিন্ন শহরে যাচ্ছে।কৃষকদের সব ধরনের সহযোগিতা আগামীতেও অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eleven − 9 =


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ

x