সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৮:৫৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সকল প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে খুলনায় বায়োজিন এলো আন্তর্জাতিক মানের স্কিনকেয়ার সেবা নিয়ে বিএমডিএ : মিথ্যা তথ্যে পিডি নিয়োগ,৮ কোটি টাকার কাজ ভাগ-বাটোয়ারার আয়োজন মোহনপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দুই এমপির চেয়ারম্যান প্রার্থীর লড়াই মোহনপুরে উপজেলা নির্বাচন বর্জনের ডাকে বিএনপির লিফলেট বিতরণ নালিতাবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান হাজী মোশারফ শেখ ফরিদ-আশুরা ভাইস চেয়ারম্যান এমপি আবুল কালাম আজাদের চাচাতো ভাইয়ের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হলেন শরীফ সারিয়াকান্দিতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা, থানায় অভিযোগ রাজশাহীর তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান হলেন যারা রাজশাহী বরেন্দ্র কলেজের নতুন অধ্যক্ষ রণজিৎ কুমার সাহা
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

বাংলাদেশের আইন সভা হবে দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট

নির্দিষ্ট ভূখণ্ডে স্থায়ী ভাবে বসবাসকারী জনসমষ্টি যাদের সার্বভৌম ক্ষমতা ও সরকার আছে সেটাই রাষ্ট্র।রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য সরকার‌ই হ‌ইলো প্রধান উপাদান।সরকার ছাড়া রাষ্ট্রের কল্পনা করা যায় না।মানুষের জন্য মাথা যেমন রাষ্ট্রের জন্য সরকার তেমন।সরকার এর উপর‌ই নির্ভর করে রাষ্ট্রের উন্নতি অবনতি।

সরকারের আবার তিনটি বিভাগ আছে-১। শাসন বিভাগ ২। আইন বিভাগ, ৩। বিচার বিভাগ। সরকারের আইন বিভাগটা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ।

প্রত্যেক দেশে বা প্রত্যেক রাষ্ট্রেরই আইন বিভাগ আছে।এই আইন বিভাগ আবার বিভিন্ন রাষ্ট্রে বিভিন্ন।কোন কোন রাষ্ট্রের আইন বিভাগ এক কক্ষ বিশিষ্ট।আবার কোন কোন রাষ্ট্রের আইন বিভাগ দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট।

ব্রিটেনের আইন সভা দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট।হাউস অব লর্ড হাউস অব কমন্স।আমেরিকার আইন সভা দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট।সিনেট কমন সভা।ভারতের আইন সভা দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট রাজ্যসভা ও বিধান সভা।

আবার কিছু কিছু রাষ্ট্রের আইন সভা এক কক্ষ বিশিষ্ট।বাংলাদেশের আইন সভা এক কক্ষ বিশিষ্ট।একটা কক্ষ থেকে বা এক জায়াগা থেকে আইন পরিচালিত হয়। বাংলাদেশের আইন সভার নাম জাতীয় পরিষদ।

উন্নত রাষ্ট্রের আইন সভাগুলো সাধারনত দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট হয়।রাষ্ট্রের সার্বিক উন্নতির জন্য আইন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

বাংলাদেশের জাতীয় সংসদকে দ্বি-কক্ষ করার পক্ষে আমার মতামত ও সুপারিশ নিম্নরূপ :

ক) নিম্ন কক্ষের নাম হবে সাধারণ সভা;

খ) উচ্চ কক্ষের নাম এলিট সভাঃ নিম্ন কক্ষের গঠন হবে জাতীয় সংসদের গঠনের আলোকে এর সদস্য সংখ্যা হবে ৩৫০ জন। ৩০০জন নির্বাচিত হবে জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে। ৫০জন সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য নির্বাচিত হবে ৩০০ জন সাধারণ সদস্যের ভোটে। এদের মেয়াদকাল হবে ৫ বছর।

খ) বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের উচ্চ কক্ষের নাম হবে এলিট সভা,এলিট সভার গঠন, ক্ষমতা ও কার্যাবলী হবে নিন্মরূপ ।

গঠন : এলিট সভার সদস্য সংখ্যা হবে ৩০০ জন, মেয়াদ ৬ বছর।প্রতি ২ বছর পর পর ১০০ জন সদস্যের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।এলিট সভা কখনও পুরোপুরি বিলুপ্ত হবে না বা ভাঙ্গিয়া যাবে না।দেশের সব পেশার লোক হইতে এলিট সভা গঠিত হবে।

মো: মজিবুর রহমান
প্রভাষক রাষ্ট্রবিজ্ঞান
বালুর চর ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen + 1 =


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ

x