বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

সরিষায় আশার বীজ বুনছেন চাষী

মাগুরা : চারিদিকে হলুদের সমারোহ।সরিষার হলুদ ফুলে ভরে গেছে পুরো মাঠ।বিস্তৃর্ণ মাঠজুড়ে হলুদের ঢেউ।শীতকালে গ্রামীণ মাঠে যেন এক হলুদের গালিচা।আমন ধান কাটা কাটতে না কাটতেই সরিষা বুনতে ব্যস্ত সময় পার করছেন চাষীরা।আমন ও বোরো ধানের মাঝে বাড়তি ফলন পেতে উচু ও শুকনা জমিতেই কেবল বুনা হয় সরিষা।সরিষা থেকে একদিকে যেমন ভালো ফলন পাওয়া যায় অপরদিকে সরিষা আবাদ করায় জমির উর্বরত বৃদ্ধি পায়।

সরেজমিন উপজেলার শতখালী, ধনেশ্বরগাতী, তালখড়ি, আড়পাড়াসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে দেখা যায়, কেউ সরিষা বুনছেন, কেউ সরিষার জন্য মাঠ প্রস্তুত করছেন, অনেকের জমির সরিষা ৬-১২ ইঞ্চি পর্যন্ত লম্বা হয়ে গেছে।মাঝে মাঝে কোথাও আমন ধান কেটে বাড়ি নেওয়ার কাজে মগ্ন রয়েছেন চাষিরা।আমনে ভাল ফলন না পেয়ে সরিষায় আশার বীজ বুনছেন বলে জানিয়েছেন অনেকে।

আড়পাড়া ইউনিয়নের আলোকদিয়া গ্রামের কৃষক শক্তি গাইন বলেন, এবছর ৬ বিঘা জমিতে আমন ধান লাগিয়েছিলাম যেখানে বিঘা প্রতি ২০ মণ ধান হয়েছে।তাই আমনের খরচ উঠাতে ৩ বিঘা জমিতে সরিষা বুনেছি।আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে সরিষা থেকে আশা করি ভালো ফলন পাব।

তালখড়ি ইউনিয়নের কৃষক রমিজ উদ্দিন বলেন, দুই একর জমিতে সরিষা বুনার ইচ্ছা আছে।ইতোমধ্যে দেড় একর জমিতে সরিষা বুনা হয়ে গেছে।সরিষার দাম ভালো পেলে সার ঔষধুর খরচ মিটানো যাবে।

আড়পাড়া ইউনিয়নের পুকুরিয়া গ্রামের কৃষক তবারেক মোল্যা বলেন, কৃষি অফিস থেকে এক কেজি সরিষার বীজ পেয়েছিলাম এর সাথে আরো কয়েক কেজি যোগ করে ৪ বিঘা জমিতে সরিষা বুনেছি।

শালিখা উপজেলা কৃষি দপ্তর থেকে দেওয়া এক তথ্য থেকে জানা যায়, এ বছর শালিখা উপজেলায় ৬ হাজার ৭ শত ৬০ হেক্টর জমিতে সরিষা বুনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে যার মধ্যে ৭০ শতাংশ জমিতে সরিষা বুনা হয়েছে।লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অনেক বেশি হেক্টর জমিতে সরিষা বুনা হবে বলেও আশা করছেন উপজেলা কৃষি বিভাগ।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আলমগীর হোসেন বলেন, এ বছর আমন ধানের ফলন ভালো হয়েছে, আশা করি আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে সরিষার ফলনও ভালো হবে।

তিনি আরো বলেন, চলতি অর্থবছরে ৮ হাজার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে সরকারি প্রণোদনা স্বরূপ এক কেজি সরিষার বীজ, দশ কেজি এমওপি এবং দশ কেজি ডিএপি রাসায়নিক সার বিতরণ করা হয়েছে পাশাপাশি সরিষা থেকে ভালো ফলন পেতে প্রান্তিক কৃষকদের সব সময় সহযোগিতা দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ