ঢাকা ০৭:৩৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল 'যমুনা প্রতিদিন ডট কম' এ সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে।
সংবাদ শিরোনাম :
৫৩ বিজিবির পৃথক অভিযানে ভারতীয় ২২টি গরু সহ একজন আটক চারঘাটে ইসলামী ব্যাংক এজেন্ট মালিকের বিরুদ্ধে আয়কর ফাঁকির অভিযোগ পত্নীতলায় জেলা প্রশাসকের সাথে মতবিনিময় সভা মাইক্রোসফট ইনোভেটিভ এডুকেটর এক্সপার্ট বাংলাদেশ কমিউনিটি মিটআপ ২০২৩ অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম কলেজ প্রাক্তন ছাত্রলীগ পরিষদের যৌথ সভা অনুষ্ঠিত ৭টি উপ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করা আহ্বান বঙ্গদ্বীপ এম এ ভাসানীর নড়াইলে প্রেমের ফাঁদে ফেলে স্ত্রীকে নির্যাতন ও মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ কুড়িগ্রাম সদরে জমি নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১৫ শেখ হাসিনার গাড়ি বহর হামলা মামলায় সাক্ষ্য দিলেন বিএনপি নেতা আমানউল্লাহ আমানসহ দুজন  চাটখিলে দিনমজুরের লাশ উদ্ধার

নওগাঁয় দাখিল মাদ্রাসায় নিয়োগ বানিজ্যের অভিযোগ

নওগাঁ প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় : ০৮:২৬:১৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২৩ ৭৫ বার পড়া হয়েছে
যমুনা প্রতিদিন অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নওগাঁর পত্নীতলা কাদিয়াল দিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাও: নওসাদ আলস ও সহকারী শিক্ষক আসলাম আলীর বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্ণীতি ও নিযোগ বানিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ না হতেই গোপনভাবে পকেট কমিটি গঠন করে ডিজি প্রতিনিধির সাক্ষর জাল করে আয়া, নিরাপত্তা কর্মী, পরিচ্ছন্নকর্মী ও গ্রন্থাগার মোট চারটি পদে কোটি টাকার নিয়োগ বানিজ্য, সহকারী শিক্ষক আব্দুল মুত্তালিব অবৈধ নিয়োগ বানিজ্যের প্রতিবাদ করতে গেলে মিথ্যা অভিযোগ এনে শিক্ষা নীতিমালাকে উপেক্ষা করে সাময়িক বহিষ্কার করাসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্ণীতি করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এরই প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার কাদিয়াল সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার সকল শিক্ষার্থী ক্লাস বর্জন করেন।

অনুসন্ধানে উঠে আসে গত ৩১ অক্টোবর ২০১৮ সালে মো: আব্দুর রকিব কে সভাপতি করে দুই বছরের জন্য পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। যে কমিটির মেয়াদ ছিলো ৩১ অক্টোবর ২০২০ সাল পর্যন্ত। কিন্তু কমিটির মেয়াদ শেষ না হতেই নয় মাস পূর্বে মহামারী করোনা ভাইরাসের সময় ১৭ মার্চ ২০২০ সালে এডহক কমিটি না করেই মো: আবুল হোসেন কে সভাপতি করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটি গঠন কে কেন্দ্র করে জেলা প্রশাসন ও জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করা হলে, তদন্তের দায়িত্ব পড়ে তৎকালীন পত্নীতলা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মুসহাক আলীর নিকট। তিনি তদন্ত করে কাদিয়াল সিদ্দিকিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাও: নওসাদ আলম ও সহকারী শিক্ষক আসলাম আলীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপারিশ করেন।

এসকল অনিয়ম ও দূর্ণীতির প্রতিবাদ করায় অত্র মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক আব্দুল মুত্তালিব কে একের পর এক মিথ্যা অভিযোগ তুলে ২০ মে ও ১৫ জুলাই শুক্রবার দিনে দুটি কারণদর্শানো নোটিশ দেন সুপার মাও: নওসাদ আলম। নোটিশের সঠিক জবার দিলেও সহকারী শিক্ষক আব্দুল মুত্তালিব কে শিক্ষানীতিমালা কে উপক্ষো করে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

এ বিষয়ে অত্র এলাকার শাহাবুল ইসলামসহ অত্র এলাকার কয়েকজন গণমাণ্য ব্যক্তিরা বলেন, এক সময় আমাদের এই প্রতিষ্ঠানটি এলাকার একটি নামকড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিল। শারীরিক শিক্ষক আসলাম আলী আসার পর তারই অসৎ বুদ্ধিতে সুপার নওসাদ আলম একের পর এক অনিয়ম আর দূর্ণীতি করেই চলছেন। যদি কেউ এর প্রতিবাদ করে তাহলে তাকে বিভিন্ন মাধ্যম দিয়ে হুমকি দেওয়া হয়। বর্তমানে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। আমরা এসব দূর্ণীতিবাজ শিক্ষকদের কঠোর শাস্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।

কাদিয়াল সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাও নওসাদ আলমের কাছে তার অনিয়ম ও দূর্ণীতির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সময় করে অফিসে আসেন চায়ের দাওয়াত রইলো বলে ফোনের সংযোগ কেটে দেয়।

এ বিষয়ে পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা: রুমানা আফরোজ এর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, এবিষয়ে একটি তদন্ত আসছে আমার কাছে। তদন্তের মাধ্যমেই প্রকৃত ঘটনা উঠে আসবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

নওগাঁয় দাখিল মাদ্রাসায় নিয়োগ বানিজ্যের অভিযোগ

আপডেট সময় : ০৮:২৬:১৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২৩

নওগাঁর পত্নীতলা কাদিয়াল দিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাও: নওসাদ আলস ও সহকারী শিক্ষক আসলাম আলীর বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্ণীতি ও নিযোগ বানিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ না হতেই গোপনভাবে পকেট কমিটি গঠন করে ডিজি প্রতিনিধির সাক্ষর জাল করে আয়া, নিরাপত্তা কর্মী, পরিচ্ছন্নকর্মী ও গ্রন্থাগার মোট চারটি পদে কোটি টাকার নিয়োগ বানিজ্য, সহকারী শিক্ষক আব্দুল মুত্তালিব অবৈধ নিয়োগ বানিজ্যের প্রতিবাদ করতে গেলে মিথ্যা অভিযোগ এনে শিক্ষা নীতিমালাকে উপেক্ষা করে সাময়িক বহিষ্কার করাসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্ণীতি করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এরই প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার কাদিয়াল সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার সকল শিক্ষার্থী ক্লাস বর্জন করেন।

অনুসন্ধানে উঠে আসে গত ৩১ অক্টোবর ২০১৮ সালে মো: আব্দুর রকিব কে সভাপতি করে দুই বছরের জন্য পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। যে কমিটির মেয়াদ ছিলো ৩১ অক্টোবর ২০২০ সাল পর্যন্ত। কিন্তু কমিটির মেয়াদ শেষ না হতেই নয় মাস পূর্বে মহামারী করোনা ভাইরাসের সময় ১৭ মার্চ ২০২০ সালে এডহক কমিটি না করেই মো: আবুল হোসেন কে সভাপতি করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটি গঠন কে কেন্দ্র করে জেলা প্রশাসন ও জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করা হলে, তদন্তের দায়িত্ব পড়ে তৎকালীন পত্নীতলা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মুসহাক আলীর নিকট। তিনি তদন্ত করে কাদিয়াল সিদ্দিকিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাও: নওসাদ আলম ও সহকারী শিক্ষক আসলাম আলীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপারিশ করেন।

এসকল অনিয়ম ও দূর্ণীতির প্রতিবাদ করায় অত্র মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক আব্দুল মুত্তালিব কে একের পর এক মিথ্যা অভিযোগ তুলে ২০ মে ও ১৫ জুলাই শুক্রবার দিনে দুটি কারণদর্শানো নোটিশ দেন সুপার মাও: নওসাদ আলম। নোটিশের সঠিক জবার দিলেও সহকারী শিক্ষক আব্দুল মুত্তালিব কে শিক্ষানীতিমালা কে উপক্ষো করে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

এ বিষয়ে অত্র এলাকার শাহাবুল ইসলামসহ অত্র এলাকার কয়েকজন গণমাণ্য ব্যক্তিরা বলেন, এক সময় আমাদের এই প্রতিষ্ঠানটি এলাকার একটি নামকড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিল। শারীরিক শিক্ষক আসলাম আলী আসার পর তারই অসৎ বুদ্ধিতে সুপার নওসাদ আলম একের পর এক অনিয়ম আর দূর্ণীতি করেই চলছেন। যদি কেউ এর প্রতিবাদ করে তাহলে তাকে বিভিন্ন মাধ্যম দিয়ে হুমকি দেওয়া হয়। বর্তমানে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। আমরা এসব দূর্ণীতিবাজ শিক্ষকদের কঠোর শাস্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।

কাদিয়াল সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাও নওসাদ আলমের কাছে তার অনিয়ম ও দূর্ণীতির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সময় করে অফিসে আসেন চায়ের দাওয়াত রইলো বলে ফোনের সংযোগ কেটে দেয়।

এ বিষয়ে পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা: রুমানা আফরোজ এর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, এবিষয়ে একটি তদন্ত আসছে আমার কাছে। তদন্তের মাধ্যমেই প্রকৃত ঘটনা উঠে আসবে।