বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ১২:৫৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রাজশাহী বিভাগের ১৯ উপজেলার চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহণ দ্রুত সময়ে কোরবানির বর্জ্য অপসারণ বিষয়ে রাসিকের সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত ‘প্রধানমন্ত্রী ঘর দিছে,বৃষ্টির দিনেও শান্তিতে থাকতে পারমু’ বর্তমান কমিটিকে অবৈধ ঘোষণা করে আওয়ামী আইনজীবীদের আহ্বায়ক কমিটি গঠন পবায় সংবাদ প্রকাশের পরেও থামছেনা পুকুর খননের মাটি বিক্রি সারিয়াকান্দিতে ভূমিসেবা সপ্তাহে বির্তক,কুইজ প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ লফস এর আয়োজনে উম্মুক্ত স্থানের বাজেট বরাদ্দ ও গাইড লাইন শীর্ষক আলোচনা সভা সারিয়াকান্দিতে ওয়ার্ড কমিটির সমন্বয় (wc) সভা অনুষ্ঠিত সারিয়াকান্দিতে ওয়ার্ড কমিটির সমন্বয় (wc) সভা অনুষ্ঠিত আসামীর বোনের বিরুদ্ধে মামলার বাদীকে হত্যার চেষ্টা,থানায় অভিযোগ
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

পবিপ্রবিতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

পবিপ্রবিতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (পবিপ্রবি) ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার (২০ মে) রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের গণরুমে জুনিয়র শিক্ষার্থীদের ওঠানোকে কেন্দ্র করে পবিপ্রবি ছাত্রলীগের সভাপতি আরাফাত ইসলাম খান সাগর এবং সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান তারেকের সমর্থক গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।এ সময় প্রায় ১০-১৫টি রুমের জানালা-দরজা ভাঙচুর করা হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আরাফাত ইসলাম খান সাগরের সমর্থকরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ১১৯ নম্বর রুমে জুনিয়র শিক্ষার্থী তোলে।পরবর্তীতে এতে বাঁধা দেয় সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান তারেকের সমর্থকরা।এ সময় বাকবিতণ্ডা শুরু হয় এবং মুহূর্তের মধ্যে কথা কাটাকাটি থেকে হাতাহাতির ঘটনায় পরিণত হয়।পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য হল থেকে উভয় পক্ষের সমর্থকরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে আসতে শুরু করে।এতে সংঘর্ষ বড় আকার ধারণ করে।পরবর্তীতে হলের প্রভোস্ট ও প্রক্টরসহ অন্যরা উপস্থিত হলে পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়।

পবিপ্রবি ছাত্রলীগের সভাপতি আরাফাত ইসলাম খান সাগর বলেন, যারা সাধারণ ছাত্রদের রুম ভাঙচুর করে তারা ছাত্রলীগের কর্মী হতে পারে না।আমরা আশা করি প্রশাসন দ্রুত জড়িতদের শাস্তির আওতায় আনবে।

সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান তারেক বলেন, আমরা চাই শান্ত ক্যাম্পাস শান্ত থাকবে।যারা শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার পরিবেশ নষ্ট করছে তাদের দ্রুত শাস্তির আওতায় আনা হোক।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. সন্তোষ কুমার বসু এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. মো. জাহিদ হাসানের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × 3 =


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ

x