রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:১৫ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
দেশের জনপ্রিয় সর্বাধুনিক নিয়ম-নীতি অনুসরণকৃত রাজশাহী কর্তৃক প্রকাশিত নতুনধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘যমুনা প্রতিদিন ডট কম’

বাঘায় হাতির ভয় দেখিয়ে প্রকাশ্যে চাঁদাবাজি,দেখার কেউ নেই

রাজশাহী জেলার বাঘা উপজেলায় হাতি দিয়ে ইশ্বরদী-বাঘা-বানেশ্বর আঞ্চলিক মহাসড়কে চাঁদা তোলার অভিযোগ উঠেছে।

চলন্ত ট্রাক, মোটরসাইকেল ও অটোরিকশা সহ বিভিন্ন যানবাহন থামিয়ে জোরপূর্বক চাঁদা তোলায় অতিষ্ঠ রোডের চালক ও যাত্রীরা।চাঁদার কবল থেকে রেহাই পায়নি রাস্তার পাশের দোকান মালিকরাও।

হাতির সামনে পড়লে হাতির মাউথ (পরিচালনাকারী) কে টাকা না দিয়ে চলাচল করতে পারেনা কোন যানবাহন ও ব্যক্তি।

অভিযোগ উঠেছে প্রকার ভেদে ২০/= ৫০/= ও ১০০/= টাকা চাঁদা দাবি করে হাতি দিয়ে।হাতিকে টাকা কম দিলেও না নেওয়ার অভিযোগ এই হাতির মাউথের (পরিচালকের) বিরুদ্ধে।আর এতে ভোগান্তিতে আছে এই রোডে চলাচলকারী চালক ও যাত্রীরা।

উপজেলার এই অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এবং ব্যস্ততম সড়কের মাঝে যানবাহন থামিয়ে ইচ্ছে মতো চাঁদা আদায় করে ওই যুবক।চাঁদা আদায় ছাড়া কোনো ভাবেই তার বাধা অতিক্রম করতে পারছিলনা চালকরা।কেউ কেউ হাতিকে এড়িয়ে যেতে দ্রুত গতিতে বিপদজনকভাবে রাস্তার পাশ দিয়ে গাড়ি চালিয়ে যেতেও দেখা গেছে।চাঁদা না দিলে হাতি দিয়ে ভয় দেখানোর অনেক অভিযোগও পাওয়া যায়।

ভুক্তভোগী পথচারী ও বিভিন্ন বাজারের দোকান মালিকরা বলেন, উপজেলা  রাস্তার গাড়ি থামিয়ে ও বাজারে হাতি দিয়ে বিভিন্ন গাড়ি সহ দোকানে সামনে পথ রুদ্ধ করে চাঁদা দাবি করে।চাঁদা না দিলে বা চলে যেতে বললে ক্ষিপ্ত হয়ে হাতি দিয়ে ভয় দেখানো ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করছে।

এসময় এক ব্যাটারি চালিত অটো চালক বলেন, হাতিকে টাকা না দিয়ে দ্রুত সামনে চলে যেতে চেয়েছিলাম।হাতির ভয়ে যাত্রীরা হুড়াহুড়ি করতে গিয়ে আমার অটোটা প্রায় পড়েই গিয়েছিল।আমরা গরীব মানুষ, ১০ টাকা কামাতে গিয়ে যদি ২০ টাকা চাঁদা দিতে হয় আমরা যাবো কোথায় ?

এ বিষয়ে বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ খায়রুল ইসলামকে তাৎক্ষনিক জানালে তিনি সেখানে পুলিশ পাঠানোর কথা বললেও দীর্ঘ সময় গেলেও থানা থেকে কেউ আসে নাই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ten − five =


অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ

x